খা’রাপ পে’শার ব’র্ণনা দি’লেন বি’শ্ববিদ্যালয় একছা’ত্রী বি’স্তারিত প’ড়ুন!

এ দেশের একটি নামকরা পাবলিক বি’শ্ববিদ্যালয়ের শি’ক্ষার্থী কিভাবে জ’ড়িত হলেন যৌ’নপেশা বা ক’লগার্ল সা’র্ভিসে। নি’ম্নমধ্যবিত্ত পরিবারে জ’ন্মনেয়া মেয়েটি এই’সএসসি পাশের পর যখন প্র’স্তুতি নি’চ্ছিল বি’শ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি’র তখনই তার বাবা তাদের সংসারের একমাত্র অ’বলম্বন ছোট্ট ব্যবসাটি চরম লোকসানে পড়ে। স’ঙ্গে কপাল পুড়ে পুরো পরিবারের।

এরপর থেকে বিভিন্ন প্র’ক্রিয়াতে মেয়েটিকেই হাল ধরতে হয় পুরো পরিবারের। আর এক প’র্যায়ে প্র’তারক চ’ক্রের খ’প্পরে পড়ে সে হারায় তার সম্ভ্র’ব, তার স’র্বস্ব। এরপর শু’রু হয় এক নতুন জীবন, চলতে থাকে অ’ন্ধকারের জগতে তার পথচলা।পরিবারের সংকট থাকার কারণে বিভিন্ন যায়গায় চাকরি খোঁজ করেন।
আবার জবস বি’জ্ঞাপন দেখে বিভিন্ন জায়গায় চাকরির জন্য আবেদন করেন। বেশির ভাগ যায়গায় কাজের অভিজ্ঞতা চায় কিন্তু তার কোন অ’ভিজ্ঞতা নেই। পরিবারের সং’কট আবার বি’শ্ববিদ্যালয় ভর্তি হতে হবে। হতাশার মধ্যেই দিন কাটছে তার।

এরই মধ্যে গু’লশানে একটি অফিসে ভাইবা দেয়ার জন্য ডাকা হয় এই শি’ক্ষার্থীকে। কয়েকদিন পর ফের ভাইবা দেওয়ার জন্য তাকে ডাকা হয়। অ’তঃপর তাকে বলা হয় তাদের অফিসার আছে ভাইবা দেয়ার জন্য ওখানে নিয়ে যাওয়া হবে।এই ত’রুণী বলেন, আমাকে কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল আমি বুঝে উঠতে পারছিলাম না।
কিন্তু জায়গাটা হচ্ছে হোটেল রেডিসন। এটা কোন অফিস মনে হচ্ছিল না। অনেকক্ষণ পরে একজন লোক আসলো তাকে অফিসারের মতোই মনে হচ্ছিল। দেখতে পেলাম আমাকে জিনি নিয়ে গেলেন তার হাতে অফিসারের মতো যেই লোকটা কিছু টাকা ধরিয়ে দিলেন।

তখন আমার মনে একটু খটকা লাগলো। ওনাকে কেন টাকা ধরিয়ে দিচ্ছেন। তখন আমি একটু ভয়ও পেলাম। কখনোতো এরকম প’রিস্থিতিতে পড়িনি। আমাকে জেনে নিয়ে গেলেন উনি আমার নিকটে আসলো।
তাকে জি’জ্ঞেস করলাম ইন্টারভিউ কি হবে? উনি টাকা দেখিয়ে বললো বুঝতে পেরেছো তুমি? আমি বললাম কি বুঝতে পারবো? তখন উনি বলল বাকিটা তোমার কাজ। তখন আমি কি করবো কিছু বুঝতে পারছিলাম না। তখন আমি বুঝতে পারছিলাম না যে আমি কি করবো? আমি কি চলে যাবো নাকি চি’ৎকার করবো। উনি বললো কাজটা তোমাকে করতে হবে। ওনাকে সময় দিতে হবে।

‘কাউকে সময় দেয়া মানে কি এটা আমি বুঝতে পারলাম। তখন আমি তাকে বললাম এটা আমার পক্ষে কখনোই সম্ভব নয়। আমি এটা পারবোনা, আমি কি করে সময় দিব? আমাকে যেই লোকটা ওখানে নিয়ে গেলেন তিনি আমাকে বললেন তোমার যদি চাকরিটা দরকার হয়, যদি চাকরিটা করতে চাও তাহলে মনে হয় কাজটা করা দরকার। আবার হু’মকি দিয়ে বলেছিলো এই কাজটা না করলে কোন কাগজ ফেরত দেয়া হবে না। এ কথা বলে ওই লোকটা চলে গেলে। তখন আমি বুঝতে পারছিলাম না কি করবো। অফিসার এর মত দেখতে লোকটা আমার সামনে বসে আছেন।

তখন আমি ভাবলাম আমার লেখাপড়া করা দরকার, ছোট ভাই, বোন, বাবা-মা আছেন। আমার তখন মনে হলো আমি যদি তাদের দিকে হাত বারাই যদি স’হোযোগিতা করি তাহলে তারা ভালো থাকবে। ওই লোকটা আমার সামনে আসলেন তিনি বললেন এখান থেকে বের হওয়া যাবে না।
তখন আমি তাকে অনেক রি’কোয়েস্ট করলাম বলেছিলাম আমাকে এখান থেকে যেতে দেন, কি’ন্তু উনি আমার কোন কথাই শোনেন নি। উনি আমাকে অনেক জোর করেছেন।’বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শি’ক্ষার্থী বলেন, তখন যা হওয়ার তা তো হয়েই গেল। কি পরিমাণ টাকা তাকে প’রিশোধ করেছিলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, দশ হাজারের মতো ছিলো। তখন আমি বাসায় গিয়ে একেবারে ভে’ঙে পরি। নিজেকে অনেক অ’পরাধী মনে হয়।

কোন জিনিসে আমার মন বসছিলো না। কারো কাছে বলতেও পারছিনা, বলার কোন বিষয়ও না। আম্মা জানতে চেয়েছিলেন কি হয়েছে, কিন্তু এর কোন উত্তর আমি দিতে পারি নি। তখন নিজেকে সা’ন্ত্বনা দেয়ার চেষ্টা করি। যে যা হওয়ার তাতো হয়েই গেছে। অতঃপর এই টাকা দিয়েই বিশ্ব’বিদ্যালয় ভ’র্তি হই। পাশাপাশি বইপত্র যা যা প্রয়োজন সব কিছু ক্র’য় করি।

তিনি বলেন, আমার মনে হয়েছিল আমি কেন মরে যাবো। আমাকে বাচে থাকতে হবে। ওরা বলেছিলো মাসে তিনটা কাজ করতে হবে।‘কিছুদিন যাওয়ার পর অ’ন্ধকার জগতে কাজ করে এমন একটা গ্রু’পে এ্যাড হলাম। এই গ্রু’পের যিনি এ্যাডমিন ছিলেন তিনি কারো কাছ থেকে কোন বিনিময় নেয় না। তিনি কাজ যোগাড় করে দেয়। এভাবেই অ’ন্ধকার জগতে প্রবেশ করি। একসময় আমি বুঝতে পারি কিভাবে যোগাযোগ করতে হয়।

কিভাবে নিজেকে হাইড রাখতে হয়।এ কাজ করতে গেলে কখনো নিজেকে অ’পরাধী মনে হয় কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সব সময় মনে হয়, আবার মাঝে মাঝে মনে হয় না।টাকা পয়সা আর প্যা’কেজের বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, টাকা পয়সার বিষয় হচ্ছে যারা আসে তাদের অ’বস্থা বুঝে। যার অর্থ’নৈতিক অবস্থা একটু ভালো সে হয়তো একটু বেশি দিচ্ছে।কিভাবে যোগাযোগ হয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, গ্রুপে পোস্ট দেই, ক’ন্টাক্টটা ইনবক্সে হয়।

তার পর ফোনের মাধ্যমে ক’ন্টাক্ট করা হয়। যায়গাটা কিভাবে নি’র্ধারণ করা হয় এ বিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের গ্রু’পের অনেকে আছে যারা পরিবার সহ থাকে। ওখানে যাওয়া হয়, কিন্তু যায়গা গুলো অনেক নি’রাপত্তার। কেউ ঝামেলা করবে এমন কোন সমস্যা নেই। গেস্ট হিসেবে যাই। আসার সময় আমার যা আয় হয়, এখান থেকে দুই বা তিন হাজার তাদের দিয়ে আসতে হয়।

এখানে কারা আসে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বেশির ভাগ হচ্ছে সরকারি চাকরিজীবী, বে-সরকারি চাকরিজীবী আবার অনেক স্টু’ডেন্টও আসে। স্টু’ডেন্টদের কাজ আমি একটু কম করি। কারন আমি নিজেও একজন স্টুডেন্ট এজন্য তাদের কাজ আমি করি না। বেশির ভাগ ৩৫ বছরের উপরে লোকজন বেশি আসে।
এপর্যন্ত আপনি কতজনের সাথে মিট করেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ৩৫ থেকে ৪০ জনের মতো হবে। ঢাকার ভি’তরেই কাজ গুলো করা হয়। ছয় থেকে আট হাজার টাকা ক’ন্টাক্ট হয়। অনেকে থাকার পরে বলে ভুত থেকে টাকাটা তুলে দিচ্ছি। দেখা যায় তার আর খোঁজ খবর নেই। আবার অনেকে টাকা কম দিয়ে যায়। বলছে পরবর্তীতে দিব। পরবর্তীতে অনেকে দিয়ে দেয়, আবার অনেকে দেয় না।

আমি এখান থেকে বের হতে চাই। লেখাপড়া শেষ করে চাকরি করতে চাই। আমি জানিনা এখান থেকে সমাজ আমাকে কিভাবে বের করবে, কিন্তু আমি এখান থেকে বের হতে চাই। উ’ল্লেখ্য, সম্প্রতি দেশের বেসরকারি সময় টেলিভিশন-এ সংবাদটি প্রকাশিত করা হয়। সেই আলোকেই আমাদের এই প্র’তিবেদনটি করা হয়েছে।

আবার অনেকে বাজে ব্যা’বহার করে। মনে হয় আমরা কোন মানুষ না। আমাদের সাথে মানুষের আচরণ করে না। এটা কোন জীবন হতে পারে কি না জানিনা। এটা আসলে কোন লাইফ না। আমি চাই এখান থেকে প্রতিনিয়ত বের হতে। আমি চাই আরও পাঁচটা মানুষ যেভাবে থাকে আমিও সেভাবে থাকি।এই শিক্ষার্থী বলেন, আমি এ জীবন চাই না।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*